বিলুপ্তির পথে গ্রামবাংলার ‘খোঁয়াড়’ প্রথা

47

আলোকিত সকাল ডেস্ক

খোঁয়াড় জমির ফসল অথবা বসতবাড়ির বাগান বিনষ্টকারী গবাদিপশু আটক রাখার গারদ বিশেষ। ফসল বিনাশ করার আশঙ্কা রয়েছে এমন অবাধ বিচরণকারী গবাদিপশুও খোঁয়াড়ে আটক রাখা হতো।

গ্রামীণ প্রতিষ্ঠান ‘খোঁয়াড়’ ফার্সি শব্দ। এর অর্থ ইতস্তত বিচরণশীল উচ্ছৃঙ্খল গবাদি পশু। বিশ শতকের চল্লিশের দশক অবধি সাধারণত গ্রামবাংলায় গ্রামীণ সমাজ কর্তৃক এই প্রতিষ্ঠান পরিচালিত হতো।

মুগল আমলে যখন সরকারি আয়ের প্রধান উৎস ছিল কৃষি, তখন জমির ফসল রক্ষার ক্ষেত্রে এই প্রতিষ্ঠানটি বিশেষ গুরুত্ব পায়। এ সময়ের অর্থনীতিতে গবাদিপশুর ভূমিকাও ছিল গুরুত্বপূর্ণ।

সরকার এবং জমিদারদের অনুমতি নিয়ে প্রায় প্রত্যেক গ্রামেই খোঁয়াড় ব্যবস্থা গড়ে ওঠে। এর উদ্দেশ্য ছিল গবাদিপশুর কবল থেকে জমির ফসল ও বসতবাড়ির বাগান রক্ষা করা।

খোঁয়াড় ব্যবস্থায় গবাদিপশু কর্তৃক ফসল হানিতে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তি সংশ্লিষ্ট গবাদিপশু খোঁয়াড়ে আটক রাখতে পারতেন। এক্ষেত্রে যতদিন গবাদিপশুর মালিক ফসলের ক্ষতিপূরণ না দিতেন ততদিন ওই গবাদিপশু খোঁয়াড়ে আটক রাখা হতো।

খোঁয়াড়ের ব্যবস্থাপক খোঁয়াড়ে আটক গবাদিপশু ফিরিয়ে নেয়ার জন্য পশুর মালিককে খবর পাঠাতেন। গ্রামের মাতাব্বর শ্রেণির প্রবীণ ব্যক্তিদের দ্বারা ধার্যকৃত জরিমানা প্রদান করে মালিক তার গবাদিপশু ছাড়িয়ে নিতে পারতেন।

গবাদিপশু কর্তৃক শস্যক্ষেত্র এবং বসতবাড়ির বাগান বিনাশ প্রতিরোধের ক্ষেত্রে খোঁয়াড় পদ্ধতি ছিল একটি মোক্ষম প্রতিরোধ ব্যবস্থা।

গ্রামের প্রবীণ ব্যক্তিবর্গের সমন্বয়ে একটি খোঁয়াড় ব্যবস্থাপনা কমিটি গঠিত হতো। জরিমানার অর্থে খোঁয়াড়ের ব্যয় নির্বাহ করা হতো।

এছাড়াও যে কৃষক তার গবাদিপশুকে আর্থিক বা অন্য কোনো কারণে খাবার দিতে সক্ষম ছিল না, সেক্ষেত্রে খোঁয়াড়ে সেসব পশুর খাবারের ব্যবস্থা করা হতো।

অন্যদিকে পশুর মালিক গ্রাম থেকে দূরে কোথাও গেলে তাদের গবাদিপশু খোঁয়াড় কমিটির তত্ত্বাবধানে রেখে যেতে পারতেন।

গ্রামে শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষার ক্ষেত্রে খোঁয়াড়ের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল। এই ব্যবস্থার মাধ্যমে গবাদিপশু চুরি বা ফসল নষ্টের মতো কিছু অপরাধকে নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব হয়। গ্রামের চৌকিদার খোঁয়াড় কমিটির সদস্য থাকত। তবে কৃষি ও উৎপাদন ব্যবস্থার ব্যাপক পরিবর্তনের ফলে বর্তমানে এ ব্যবস্থা অনেকটা বিলুপ্তির পথে।

আস/এসআইসু

Facebook Comments