আফগান প্রেসিডেন্টের সমাবেশে আত্মঘাতী হামলা

65

আলোকিত সকাল ডেস্ক

আফগানিস্তানে তালেবানের দুটি আত্মঘাতী বোমা হামলায় গতকাল মঙ্গলবার কমপক্ষে ৪৮ জন নিহত ও কয়েক ডজন লোক আহত হয়েছে। প্রথম হামলাটি হয় পারওয়ান প্রদেশে প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানির নির্বাচনী সমাবেশের কাছাকাছি। এর এক ঘণ্টার মাথায় রাজধানী কাবুলে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসের কাছে আরেকটি হামলা চালায় তালেবানরা।

উভয় হামলার দায় স্বীকার করে সংবাদমাধ্যমে বিবৃতি পাঠিয়েছেন তালেবানদের মুখপাত্র জাবিউল্লাহ মুজাহিদ। এর মধ্যে নির্বাচনী সমাবেশের কাছে হামলার ব্যাপারে বিবৃতিতে বলা হয়, ‘নির্বাচনী সমাবেশে যোগ না দিতে আমরা এরই মধ্যে মানুষকে সাবধান করেছি। এর পরও কোনো ক্ষয়ক্ষতির শিকার হলে সেটার দায় তাদের নিজেদের।’ আগামী ২৮ সেপ্টেম্বরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন বানচাল করতে উদ্দেশ্যমূলকভাবে এ হামলা করা হয়েছে বলেও স্বীকার করে তালেবান।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তালেবানদের সঙ্গে শান্তি আলোচনা বন্ধ করে দেওয়ার পর এসব হামলাকে গুরুত্বের সঙ্গে দেখছে সংবাদমাধ্যমগুলো। আফগানিস্তানে সরকারব্যবস্থা, সেখান থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহার, স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠাসহ বেশ কিছু ইস্যুতে তালেবানদের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের আলোচনা চলছিল। কাতারে দফায় দফায় বৈঠকের মধ্য দিয়ে তারা সমঝোতায়ও পৌঁছেছিল। কিন্তু শেষমেষ গত ১০ সেপ্টেম্বর আলোচনা বাতিল করে দেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প।

তালেবানদের মুখপাত্র মুজাহিদ গত সপ্তাহে বলেছিলেন, ‘আফগানিস্তানে দলদারির অবসান ঘটানোর জন্য আমাদের হাতে দুটি রাস্তা ছিল। একটা হলো, জিহাদ ও যুদ্ধ আর অন্যটি হলো, আলোচনা ও সমঝোতা। ট্রাম্প যদি আলোচনা বন্ধ করে দিতে চান, তবে আমরা প্রথম রাস্তাই অবলম্বন করব এবং তারা শিগগিরই এ নিয়ে আক্ষেপ করবে।’

শান্তি আলোচনা হঠাৎ করে থমকে যাওয়ার পর আফগানিস্তানে এক দিনে দুটি আত্মঘাতী বোমা হামলার ঘটনা ঘটল। রাজধানী কাবুল থেকে ৬০ কিলোমিটার দূরে পারওয়ান প্রদেশে প্রেসিডেন্ট ঘানির নির্বাচনী সমাবেশের কাছে হামলার ব্যাপারে দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র নাসরাত রাহিমি জানান, হামলাকারী মোটরবাইকে চড়ে এসেছিল এবং সমাবেশের কাছে একটি তল্লাশি চৌকিতে বিস্ফোরণটি ঘটিয়েছিল।

ঘটনার সময় সমাবেশে ভাষণ দিচ্ছিলেন প্রেসিডেন্ট ঘানি। তবে তাঁর কোনো ক্ষতি হয়নি। পরে এক বিবৃতিতে তিনি হামলার নিন্দা জানিয়ে বলেন, ‘তালেবানরা অপরাধ করেই যাচ্ছে। তারা আরেকবার প্রমাণ করল যে আফগানিস্তানে শান্তি ও স্থিতিশীলতায় তারা মোটেই আগ্রহী নয়।’

আফগানিস্তানে নিযুক্ত জাতিসংঘের এক কর্মকর্তা তালেবান হামলার নিন্দা জানান। তাঁর অভিযোগ, সাধারণ মানুষের জীবন ও গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় তাদের অংশগ্রহণের অধিকারের প্রতি চরম অসম্মান দেখিয়েছে তালেবানরা।

এদিকে কাবুলে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসের কাছে আরেকটি হামলায় হতাহতের ব্যাপারে প্রথমে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কিছু না জানাতে পারলেও পরে জানায়, ওই হামলায় ২২ জন নিহত ও ৩৮ জন আহত হয়েছে। নিহতদের মধ্যে নিরাপত্তা বাহিনীর ছয় সদস্য রয়েছে এবং হতাহতদের মধ্যে নারী ও শিশু আছে বলে জানায় মন্ত্রণালয়।

আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন বানচাল করতে এর আগেও হামলা করেছে তালেবানরা। সূত্র : এএফপি।

আলোকিত সকাল/এসআইসু

Facebook Comments